মঙ্গলবার, ২৬ অক্টোবর ২০২১, ০৯:০৪ পূর্বাহ্ন

দুর্বারমানব শায়খে চরমোনাই

দুর্বারমানব শায়খে চরমোনাই

দুর্বারমানব শায়খে চরমোনাই

আ মি নু ল ই স লা ম কা সে মী

তিনি দুর্বার, দুর্দমনীয়, অপ্রতিরোধ্য। ছুটে চলেছেন হক- হক্কানিয়্যাতের মিশন নিয়ে।।সমালোচকদের হাজারো তীর বিদ্যুৎবেগে ছুটে আসে তাঁর দিকে। তবুও ইস্পাতের ন্যায় দাঁড়িয়ে থাকেন। কিঞ্চিত পরিমাণ টালমাটাল নেই। দু’দিন পর পর যার দিকে ঝেঁপে পড়ে হিংসুকদের শ্যেন দৃষ্টি। লাগামহীনভাবে বর্ষণ হয় গালিগালাজ। প্রতি কদমে কদমে তাঁর ভুল পাকড়াও করা হয়। এ যেন কণ্টকাকীর্ণ রাস্তা। কাঁটা বিছানো সব জায়গাতে। অসমতল ও পিচ্ছিল পথ। এর পরেও তিনি অটল-অবিচল। বীরদর্পে সম্মুখ পানে পা বাড়াচ্ছেন। সমালোচনার তীর সামলে, শত্রুদের কাঁটাদ্বার রাস্তা মাড়িয়ে সিংহের মত ছুটে চলেছেন। শায়েখে চরমোনাই সৈয়দ ফয়জুল করীম এক বিপ্লবী নাম। যার নামেই কেঁপে ওঠে বাতিলের আত্মা। কেননা এমন মর্দে মুজাহিদ, এমন লড়াকু সৈনিক, যিনি আপোসহীন। কেশাগ্র পরিমাণ বাতিলের সাথে আপোস করেন না।

যে কারণে বাতিল শক্তির রোষানলে পড়তে হয় তাঁকে বারবার। মানে একটি মাস বা একটি হাফ্তা অতিবাহিত হওয়ার আগেই তাঁকে নতুন আরেক সমস্যা মোকাবেলা করতে হয়। এক সমালোচনা হজম করার আগেই আরেক সমালোচনা মোকাবেলা করার প্রস্তুতি গ্রহণ করতে হয়। এক নাগাড়ে হাজারো হিংসুক,সমালোচক, অনলাইনে- অফলাইনে তেড়ে আসে তাঁর দিকে। অর্থাৎ ওরা যেন ওঁৎ পেতে থাকে। কখন শায়েখে চরমোনাই এর পা ফসকে যাবে, কখন মুখ ফসকে যাবে তাঁর। আর তখনই চেপে ধরবে তাঁকে।

আমার মনে হয় এই সময়ের সবচেয়ে আলোচিত ব্যক্তি শায়খে চরমোনাই। সবচেয়ে জুলুমের শিকার তিনি। তাঁর কথা, তাঁর বক্তৃতার আদ্যপান্ত না বুঝে তাঁকে সমালোচনায় জর্জরিত করা হচ্ছে। কথার আগে পরে না দেখে শুধু হিংসারবশীবতী হয়ে তাঁকে নাঙা করা হচ্ছে। রাতদিন কিছু মানুষ তাঁকে নাস্তানাবুদ করে যাচ্ছে।

শায়েখে চরমোনাই তো আকাবির- আছলাফের অনুসারী। তিনি নিজের ইচ্ছে মত কিছু করেন না। পূর্বসূরীগণ যে মেযায,যে চিস্তা- চেতনায় চলেছেন, ঠিক তিনি তো সেই পথে। আকাবিরগণ যা বলে গেছেন, তিনি তো সেই কথারই পুনার্বৃত্তি করেন।

হযরত হাফেজ্জী হুজুর যা করেছেন, যা বলেছেন তিনি তো তাই বলেন। মুফতী আমিনী রহ. যা বলেছেন, শায়খে চরমোনাই তো সেটাই বলেন। বর্তমানের আল্লামা তকী উসমানী যা বলেন, তিনি তো তাই বলেন। তাহলে ‘যত দোষ নন্দ ঘোষ’। সব দোষ কী চরমোনাই এর নায়েবে আমীর সাহেবের?

আসল কথা কী? চরমোনাই এখন বড় ফ্যাক্টর। বিশেষ করে ইসলামী রাজনীতির লাইম- লাইটে তারা। একারণে হিংসার দাবানল জ্বলছে দাউ দাউ করে। কীভাবে তাদের দমানো যায়।

তবে চরমোনাই ওয়ালাদের যোগ্যতার কথা বলছি না। এটা তাদের কোন কাবিলাতি নয়।বরং মহান আল্লাহর বিশেষ অনুগ্রহ চরমোনাইর সংগঠন এবং তাদের নেতা কর্মীদের উপর। হকের উপর দৃঢ় অবস্হানের কারণে দিনে দিনে তাঁরা উন্নতির শিখরে পৌঁছে যাচ্ছে। আরো বহুদুর যাবে ইনাশাআল্লাহ।

ধৈর্যশীলদের আল্লাহ পছন্দ করেন। কেউ সমালোচনা করলে তাঁকে সঠিক উত্তর দিন এবং ধৈর্য ধরুন। ওরা যতই সমালোচনা করুক,পথ আটকে ধরুক, চরমোনাই এর পীর সাহেবান এবং কর্মিদের আল্লাহ তায়ালা কুদরতি ভাবে হেফাজত করবেন ইনশাআল্লাহ। আল্লাহুম্মা আমিন।

লেখক : কওমি মাদরাসা শিক্ষক ও কলামিস্ট

শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved 2018 shilonbangla.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com