সোমবার, ২৯ নভেম্বর ২০২১, ০৯:০৭ অপরাহ্ন

জামিয়া আফতাবনগরে সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত

জামিয়া আফতাবনগরে সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত

জামিয়া আফতাবনগরে সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত

শিক্ষার্থীদের আকাবিরের নমুনা হিসেবে গড়ে তুলতে চাই : আবূ মূসা কাসেমী

শনিবার দিনব্যাপী হামদে বারি তাআলা-নাতে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম, কবিতা আবৃত্তি, বাংলা বক্তৃতা, আরবি বক্তৃতা ও পবিত্র কুরআনুম মাজিদ-এর তেলাওয়াতের মধ্য দিয়ে শেষ হয়েছে সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা ২০২১। ভোর থেকেই শুরু হয় আবদুল হাফেজ তাহসীনুল কুরআন মাদরাসা-জামিআ আফতাবনগর ঢাকার মুহতামিম হাফেজ মাওলানা মুফতী শরীফুল ইসলামের স্বাগত ভাষণের মধ্য দিয়ে। প্রতিযোগিতার গুরুত্ব তুলে ধরে মাদরাসার মুহাদ্দিস মাওলানা আবদুল্লাহ আল মামুন বক্তব্য দেন।

সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা ২০২১-এর পর্দা নামে বাদ ঈশা। প্রধান অতিথির আলোচনায় আবদুল হাফেজ তাহসীনুল কুরআন মাদরাসা-জামিআ আফতাবনগর ঢাকার শাইখুল হাদিস আল্লামা আবূ মূসা কাসেমী বলেন, আমরা শিক্ষার্থীকে আকাবিরের নমুনা হিসেবে গড়ে তুলতে চাই। সমাজে গিয়ে যেনো নিজেকে মেলে ধরতে পারে। সামাজিক দায়িত্ব পালন করতে পারে। বহির্বিশ্বে কাজের ক্ষেত্রে, ওয়ারেসে নবী হিসেবে আমাাদের শিক্ষার্থীরা যেনো কোথাও বাধায় না পড়ে। নিজেদের যোগ্যতায় এগিয়ে যেতে পারে। মানুষ গঠনে জামিয়া আফতাবনগর ভূমিকা পালন করছে। আল্লাহর মেহেরবানীতে পড়ালেখায়ও ভালো করবে আবদুল হাফেজ তাহসীনুল কুরআন মাদরাসা।

শনিবার (০৬ নভেম্বর ২০২১) জামিআ আফতাবনগর মিলনায়তনে মাসউদুল কাদির-এর উপস্থাপনায় ও মাদরাসার মুরুব্বী ও অভিভাবক ইঞ্জিনিয়ার মীর হোসেনের সভাপতিত্বে দিনব্যাপী সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা ২০২১ অনুষ্ঠিত হয়।

আবদুল হাফেজ তাহসীনুল কুরআন মাদরাসা-জামিআ আফতাবনগর ঢাকার মুরুব্বী ও অভিভাবক ইঞ্জিনিয়ার মীর হোসেন সভাপতির আলোচনায় বলেন, আমি ভাবতেই পারছি না, এই ছোট্ট ছোট্ট শিশুরা কী দারুণ করে কথা বলছে, আবৃত্তি করছে, তিলাওয়াত করছে, আরবি ও বাংলায় বক্তৃতা করছে। আমি পুলকিত। খুশি। মুগ্ধ। ইনশাআল্লাহ এ মাদরাসার শিক্ষার্থীরা দেশ-বিদেশে মুবাল্লিগ হয়ে কাজ করবে।

বিশেষ অতিথির আলোচনায় রেডিয়েন্ড গ্রুপের এমডি মোঃ যোবায়ের হোসেন বলেন, মাদরাসা শিক্ষার্থীদের নিজেকে মেলে ধরার চেষ্টা আমার খুব ভালো লেগেছে। এরা ইনশাআল্লাহ আরও উন্নতি করতে পারবে।

সমাপনী অনুষ্ঠানের শুরুতেই মেহমান, শিক্ষার্থী. শিক্ষকসহ সবার প্রতি শুকরিয়া জানান আবদুল হাফেজ তাহসীনুল কুরআন মাদরাসা-জামিআ আফতাবনগর ঢাকার মুহতামিম হাফেজ মাওলানা মুফতী শরীফুল ইসলাম।

এর আগে প্রতিযোগিতার শুরুতে আবদুল হাফেজ তাহসীনুল কুরআন মাদরাসা-জামিআ আফতাবনগরের শিক্ষক মুফতী আবদুল্লাহ মাহমুদ  প্রতিযোগিতার নিয়ম কানুন ঘোষণা করেন। দিনব্যাপী বিচারের দায়িত্ব পালন করেন, মাওলানা আবদুল্লাহ আল মামুন, মাওলানা তারিক জামিল, হাফেজ মাওলানা আবূ মূসা কবির, মাওলানা উসমান গণি, মাওলানা হারুনুর রশিদ, মুফতি আবদুল্লাহ আল মাহমুদ, মাওলানা জাহাঙ্গির হোসাইন, মাওলানা শাফায়াত হোসাইন, মাসউদুল কাদির, মাস্টার আবুল কাশেমপ্রমুখ।

শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved 2018 shilonbangla.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com