সোমবার, ২১ অক্টোবর ২০১৯, ১১:০৩ অপরাহ্ন

হৃদয়ের আবরার

হৃদয়ের আবরার

মাওলানা আমিনুল ইসলাম : নামটা বড় চমৎকার। মা – বাবা কত আদর সোহাগ করেই নামটা রেখেছিল। বুক ভরা আশা নিয়ে গিয়েছিল দেশের সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠ বুয়েটে। মাতা- পিতার কত আশা। তিলে তিলে বড় করেছিলেন ছেলেকে। একদিন অনেক বড় হবে আবরার। এদেশকে উজ্জ্বল করবে। আলোকিত হবে পুরো দেশের সমাজ। কিন্তু সব আশার গুড়ে বালি। লাশ হয়ে ফিরতে হল আবরারকে।

কুষ্টিয়ার কুমারখালি থানার অজপাঁড়াগার ছেলে আবরার। এরকম গহীন গ্রামের কম ছেলেরা চান্স পায় বুয়েটে। একদম তুখোড় মেধাবী ছাড়া আশা করা যায় না সর্বোচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভর্তি হবার। নিঃসন্দেহে মেধার সাক্ষর রেখেছিল সে।

কোন এলাকার কেউ দেশের স্বনাম ধন্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে চান্স পেলে আশা থাকে এলাকাবাসীর ও। সবাই কিন্তু মঙ্গল চায় সে শিক্ষার্থীর। ভাল ফলাফল করে বেরিয়ে এলে এলাকার মানুষের কল্যাণ বয়ে আনবে।

এলাকার মানুষকেও নিরাশ করল আবরার। আর ফিরে আসবেনা কোনদিন। বড় প্রকৌশলী হওয়ার স্বপ্ন ভঙ্গ হল। সেই সাথে ভেঙ্গে গেল কুমারখালী বাসীর সকল আশ- ভরসা।

বড় দুঃখের সাথে লিখতে হচ্ছে। কষ্টে যেন বুকটা ফেটে যাচ্ছে। একজন নিরপরাধ ছাত্রকে এভাবে নির্মম ভাবে পিটিয়ে হত্যা করা হল। যে বীভৎস চিত্র দেখলাম ফেসবুকে, তা দেখলে মনটা কেঁদে ওঠে।

মানুষ কত নির্দয় হলে এরকম ভাবে পিটিয়ে মারতে পারে। শরীর সর্ব জায়গায় আঘাতের চিহ্ন। কোন একটা জায়গা বুঝি বাকি নেই।

আর কতকাল এভাবে মায়ের বুক খালি হবে। কদিন পরপর ঘটছে এরকম ঘটনা।

শিক্ষাঙ্গন একটি শান্তির জায়গা। কিন্তু এ অশান্তি কেন? কেনই বা ঘটছে এগুলো।

তবে সন্ত্রাসী যারা, তাদের কোন দল নেই, ধর্ম নেই। ওদের আইনের আওতায় এনে শাস্তি দিতে হবে।এটাই দাবী সকলের।

লেখক : শিক্ষক ও সমাজ বিশ্লেষক

নিউজটি শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved 2018 shilonbangla.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com