বুধবার, ২৩ অক্টোবর ২০১৯, ০৪:১৮ পূর্বাহ্ন

স্থুলতার চিকিৎসায় নতুন দিগন্তের উন্মোচন

স্থুলতার চিকিৎসায় নতুন দিগন্তের উন্মোচন

লাইফস্টাইল ডেস্ক ● স্থুলতা রোগটি হয়তো এবার অতীতের গল্পে পরিণত হবে। কারণ গবেষকরা হয়তো স্থুলতার চিকিৎসায় এক নতুন দিগন্তের উন্মোচন করেছেন। যার মাধ্যমে হয়তো চিরতরেই বিদায় জানানো যাবে এই সমস্যাকে। প্রাণীদেহের ক্ষুধার অনুভূতি নিয়ন্ত্রণকারী মস্তিষ্কের কোষটি সনাক্ত করতে সক্ষম হয়েছেন বিজ্ঞানীরা। গবেষকরা জানান কোনো প্রাণীর যখন ক্ষুধা লাগে তখন তার মস্তিষ্কের একটি বিশেষ অঞ্চল সক্রিয় হয়ে ওঠে। যার ফলে সে প্রাণি খাবার খায়।
মস্তিষ্কের এই কোষটির তৎপরতা নিয়ন্ত্রণ করা গেলে হয়তো মানুষের ক্ষুধার অনুভূতিও নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হবে। যা ওজন নিয়ন্ত্রণে সহায়ক হবে। এই আবিষ্কার থেকে ডায়াবেটিস এবং অতিরিক্ত ওজনসংক্রান্ত রোগবালাইয়ে আক্রান্তরা সবচেয়ে বেশি উপকৃত হবেন। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রিন্সটন বিশ্ববিদ্যালয়ে এই গবেষণা চালানো হয়। এতে দেখা যায় একটি ইঁদুর ক্ষুধার্ত হওয়ার পর তার মস্তিষ্কের ডিআরএন নামের একটি বিশেষ অঞ্চল সক্রিয় হয়ে উঠছে। যার ফলে সে খাদ্যের সন্ধানে তৎপর হয়ে উঠছে। এতে দেখা যায় একটি ইঁদুর ক্ষুধার্ত হওয়ার পর তার মস্তিষ্কের ডিআরএন নামের একটি বিশেষ অঞ্চল সক্রিয় হয়ে উঠছে।

যার ফলে সে খাদ্যের সন্ধানে তৎপর হয়ে উঠছে। কিন্তু ইঁদুরটিকে যখন প্রচুর পরিমাণে খাদ্য দেওয়া হয় তখন দেখা যায় ওই কোষ ভিন্নভাবে প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করছে। এ থেকে বুঝা যায় খাদ্য গ্র্রহণের অভ্যাসের ক্ষেত্রে মস্তিষ্কের ওই অঞ্চলটি বিশেষ ভূমিকা পালন করে। মস্তিষ্কের ওই অঞ্চলের কোষগুলো শুধু ক্ষুধার কারণেই সক্রিয় হয় কিনা এবং ওই কোষগুলোই কোনো প্রাণিতে খাদ্যের সন্ধানে প্ররোচিত করে কিনা তা নিয়ে এখনো অবশ্য চূড়ান্ত কোনো সিদ্ধান্তে আসতে পারেননি বিজ্ঞানীরা। তবে বিজ্ঞানীদের এই দাবি যদি সত্য হয় তাহলে মানব মস্তিষ্কেরও একই ধরনের কোষগুলোকে নিয়ন্ত্রণ করার মাধ্যমে হয়তো মানুষের খাদ্যাভ্যাস নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হবে। যা স্থূলতার চিকিৎসা এবং ওজন নিয়ন্ত্রণের ক্ষেত্রে স্থায়ীভাবে কার্যকরী কোনো সমাধান এনে দিতে পারে।

নিউজটি শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved 2018 shilonbangla.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com