সোমবার, ১৯ অগাস্ট ২০১৯, ০৫:৩০ অপরাহ্ন

মিষ্টি মুশফিকের নামাযের আকুতি

মিষ্টি মুশফিকের নামাযের আকুতি

আদিব সৈয়দ : সমগ্র বিশ্ব একটি রেকর্ড খেলা দেখছিল। বাংলাদেশের দামাল ছেলেরা দারুণ খেলেছিল। সাকিব আল হাসান, মিরাজ রহমান, মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ, তাইজুল ইসলাম সবাই নিজের সেরাটা উপহার দিয়েছিলেন। ওয়েস্ট ইন্ডিজকে দাঁড়াতেই দেয়নি তারা।মেধা অভিজ্ঞতায় টাইগাররা এখন শীর্ষে। আজকের আলোচনার টপিক খেলা না। নামাজ। একজন মুশফিকুর রহিম; দারুণ পারফর্মার।

উইকেটের পেছনে থাকতে থাকতে নিজেকে কোথায় যে নিয়ে গেছেন মুশফিক তা নতুন করে বলার কিছু নেই। বিশ্ব তাবলীগের আজ যে দুরবস্থা, তা আমাদের ব্যথিত করে। সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিমসহ অনেক ক্রিকেটারই তাবলীগে সময় লাগিয়েছেন। তাবলীগের সৌন্দর্য তাদের হৃদয়কে গলিয়ে দিয়েছে। আলোকিত পথের দিশা দিয়েছে।

মুশফিকুর রহিম রোববার ইউকেটের পেছনে নামাজের আকুতি পেশ সমগ্র বিশ্বের কোটি কোটি মুসলমানের হৃদয়ে জায়গা করে নিয়েছে।মুশফিক বলছিলেন, এবার খা নইলে আবার নামাজ দোহরাইতে অইবো। অক্ত চলে যাইতেছে ভাই। তাড়াতাড়ি আউট করে দাও। তাড়াতাড়ি নামাজটা পড়তে হবে। নামাজটা পড়তে হবে। এই বলে আউট করে দাও ভাই। নামাজটা পড়বো ভাই। কামন।

এরপরই তাইজুল ইসলাম দুর্বার গতিতে আঘাত হানে। মনে হচ্ছিল মুশফিকের অনুরোধ রেখেছিল তাইজুল ইসলাম। অদ্ভুত ভালোবাসা জাগানিয়া শব্দাবলী যেন কানে ভেসে এলো। ইথারে ইথারে ছড়িয়ে পড়া নান্দনিক শব্দাবলী এখন বড় টপিকে পরিণত হয়েছে।

অভিনন্দন মুশফিক। নিজের জীবনে আল্লাহকে ধারণ করার এই যে ক্ষমতা, এই যে চাহিদা এটা সবার হৃদয়ে থাকে না। প্রভুভক্ত বান্দার এমন নজীরে আমাদের হৃদয়ে নাড়া দিয়েছে। আমরা অভিভূত হয়েছি। আনন্দিত হয়েছি। তোমার সর্বোত মঙ্গল কামনার করছি। দারুণভাবে আরও সাফল্য তোমাকে ছুঁয়ে যাক।

প্রসঙ্গত, একজন মিরাজ রহমান আর তাইজুল ইসলাম অনেক বড় সম্পদ বাংলাদেশের। সঙ্গে সাকীবিয়া বোলিং ব্যাটিং; অনন্য রূপায়ন। অতিশোকে পাথরে হয়ে হেটমায়ার ছাড়া আর কেউ দাঁড়াতে পারেননি। ম্যান অব দা ম্যাচ হয়েছেন মিরাজ রহমান। মিরাজ বলেছেন, সবাই আমাকে সমর্থন করেছে। আমি অনেক হ্যাপী। সিরিজ সেরা হয়েছেন সাকিব আল হাসান। সাকিব আল হাসান বলেছেন, ওভারঅল সবাই ভালো খেলেছে। বিশেষত মিরাজ দারুণ খেলেছে দ্বিতীয় ম্যাচে। নাঈমও দারুণ। সাদমানও ভালো খেলেছে।
সময় যত গড়ালো ততই উইকেট থেকে সহায়তা পেলেন স্পিনাররা।বেলা বাড়ার সঙ্গে সকালের শিশির শুকালে বল ভয়ানক টার্ন এবং স্কিড করল। সেই সঙ্গে উঠা-নামা করল। কখনও লাফিয়ে উঠল,মাঝে মধ্যে নিচু হয়ে গেল। এর সদ্ব্যবহার করলেন বাংলাদেশ বোলাররা। ২১৩ রানে অলআউট হলো অতিথিরা। এতে এক ইনিংস ও ১৮৪ রানে জিতল বাংলাদেশ।

নিউজটি শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved 2018 shilonbangla.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com