মঙ্গলবার, ১৯ মার্চ ২০১৯, ০৬:৪২ পূর্বাহ্ন

ভারতে মুসলিম নিপীড়ন, সতর্ক করল জাতিসংঘ

ভারতে মুসলিম নিপীড়ন, সতর্ক করল জাতিসংঘ

ভারতে মুসলিম নিপীড়ন, সতর্ক করল জাতিসংঘ

শীলনবাংলা ডটকম : ভারতের রন্ধ্রে রন্ধ্রে মুসলিম বিদ্বেষ ছড়িয়ে সংখ্যালঘু এই জাতির উপর নির্মম নির্যাতনের বিরুদ্ধে সতর্কতা জারি করেছে জাতিসংঘ। জাতিসংঘের এই সতর্কতা জারির মধ্য দিয়ে এটিও স্পষ্ট হয়ে গেল প্রকৃত অর্থেই ভারতে মুসলিম নির্যাতন চলছে এবং এটি ভয়াবহ রূপ ধারণ করেছে।

আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যম রয়টার্স জানিয়েছে, সংখ্যালঘু মুসলিম সম্প্রদায়ের ওপর নিপীড়নের ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করে ভারতকে সতর্ক করেছে জাতিসংঘের মানবাধিকার প্রধান।

বুধবার সংস্থাটির মানবাধিকারবিষয়ক প্রধান মিশেল বেচলেট এই উদ্বেগ প্রকাশ করেন।

ভারতে বিভাজন নীতি ও রাজনৈতিক উদ্দেশ্য বাস্তবায়নে মুসলিম সম্প্রদায়ের ওপর নিপীড়নের ঘটনায়ও উদ্বেগ প্রকাশ করেন।

জেনেভায় জাতিসংঘের মানবাধিকার কাউন্সিলের বার্ষিক প্রতিবেদনে মানবাধিকারবিষয়ক প্রধান মিশেল বেচলেট এসব তথ্য তুলে ধরেন।

তিনি বলেন, আমরা এমন খবর পেয়েছি যে ভারতে সংখ্যালঘুরা নিপীড়িত ও টার্গেটে পরিণত হচ্ছেন। বিশেষ করে মুসলিম ও অনগ্রসর দলিত এবং আদিবাসী সম্প্রদায়ের মানুষরা।

এ সময় তিনি সৌদি আরবে আটক নারী মানবাধিকার কর্মীদের মুক্তি দেয়ারও আহ্বান জানান।

প্রসঙ্গত, ভারতের মধ্যপ্রদেশে গরু জবাই করায় রিয়াজ নামে এক মুসলিম তরুণকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে।এ ছাড়া গুরুতর আহত অবস্থায় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন শাকিল নামে আরেক তরুণ। তার অবস্থাও আশঙ্কাজনক।

১৭ মে ২০১৮ বৃহস্পতিবার রাতে সাতনা জেলার আমগড় গ্রামে এই নিষ্ঠুর নিপীড়নের ঘটনা ঘটে।এবিপি আনন্দ জানিয়েছে, এ ঘটনায় ৪-৫ জনকে আটক করেছে পুলিশ। ঘটনার তদন্ত চালাচ্ছে তারা।
গেলবছরের এপ্রিলে বিশিষ্ট সমাজকর্মী ও ‘উদার আকাশ’ পত্রিকার সম্পাদক ফারুক আহমেদ গণমাধ্যমকে বলেন, দেশে ও রাজ্যে গণতন্ত্র ফেরাতে এবং তপসিলি জাতি/ উপজাতি আইন পরিবর্তনের চেষ্টার প্রতিবাদ, দলিত ও সংখ্যালঘুদের নিপীড়ন ও বঞ্চনার প্রতিবাদে ২৮ এপ্রিল কোলকাতায় মহামিছিল ও সমাবেশের ডাক দেয়া হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘প্রত্যেকদিন দেশে ৬ দলিত নারী ধর্ষিতা হন। বিজেপিশাসিত রাজ্যেগুলোতে দলিত ও সংখ্যালঘু নিপীড়নের ঘটনা অনেক বেশি ঘটছে। কথিত ‘লাভ জেহাদ’ ও ‘গো-রক্ষা’র নামে নিরপরাধ মানুষজনকে পিটিয়ে হত্যা করা হচ্ছে।’

গত বছরের জুলাইয়ে মাওলানা মাহমুদ মাদানী রাজস্থানের আলোরে মেওয়াতের আকবার খাঁ’কে হত্যার গভীর দুঃখ ও শোক প্রকাশ করে বলেছিলেন, আইন নিজের হাতে তুলে নেয়া অপরাধীদের সাহস দিনদিন বাড়ছে এই কারণে যে, তারা নিজেদেরকে আইনের বেড়ী থেকে নিরাপদ মনে করে। গত বছর আলোর এলাকায় রামগড়ে পেহলো খাঁ ও উমর খাঁ’কেও গোহত্যার অপরাধে কতল করা হয়েছে। কিন্তু আফসোস! পেহলো খাঁ’র হত্যাকারী ৭ অপরাধীকে চার্ট দিয়ে মুক্ত করে দিয়েছে পুলিশ।

মুসলমানদের তিন তালাক একটি ধর্মীয় বিষয়ে হস্তক্ষেপ করায় মাওলানা মাহমুদ মাদানী গর্জে উঠেন। জমিয়তে উলামা হিন্দের সাধারণ সম্পাদক , তিন তালাকের অধ্যাদেশের প্ররোচনায় দৃঢ়ভাবে প্রতিক্রিয়া জানিয়ে বলেন, সরকারের পদক্ষেপ ধর্মীয় বিষয়গুলির মধ্যে বিরাট হস্তক্ষেপ ছাড়া আর কিছুই নয়। মওলানা মাদানী পুনর্ব্যক্ত করেন যে, ভারতের সংবিধান অনুযায়ী, বিচার বিভাগ এবং সংসদ উভয়ই মুসলিম সম্প্রদায়ের ধর্মীয় বিষয়গুলিতে হস্তক্ষেপ করার কোন জবাব নেই।

অতএব, এই আইনের কোন আইন বা অধ্যাদেশ মুসলিম সম্প্রদায়কে যেকোনো খরচ গ্রহণযোগ্য হবে না। মুসলমানেরা ধর্মীয় কর্তব্যকে শ্রীরাম মেনে চলার জন্য আবদ্ধ এবং এভাবেই চলবে।

মাওলানা মাদানী বলেন, এই অধ্যাদেশটি তালাকপ্রাপ্ত নারীদের কোন উপায়ে উপকার করবে না; এটি পরিবর্তে ন্যায়বিচারের জন্য তাদের ক্ষতিগ্রস্ত হবে। এই আইনের অধীন, তালাকপ্রাপ্ত মহিলার দীর্ঘদিন ধরে রাখা হবে সম্ভবত, তার আবার বিয়ে করার জন্য বাধা সৃষ্টি করা হয়

নিউজটি শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved 2018 shilonbangla.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com