সোমবার, ২৬ অগাস্ট ২০১৯, ১২:১৭ পূর্বাহ্ন

বানর লাই দিলে মাথায় ওঠে!

বানর লাই দিলে মাথায় ওঠে!

বানর লাই দিলে মাথায় ওঠে!

পলাশ রহমান : প্রিয়া সাহা যা বলেছে তা যদি জামায়াত বিএনপির কেউ বলতো তাহলেও একটা কথা ছিল। কারণ গত ১০/১২ বছর যাবৎ বাংলাদেশে বিএনপি জামায়াতপন্থীরাই সবচেয়ে বেশি বিপন্ন। কিন্তু কথাগুলো বলেছে, প্রিয়া সাহা। সাবেক ছাত্র ইউনিয়ন নেত্রী। হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক এবং সরকারের উচ্চ মহলের সাথে উঠাবসা করা একজন মানুষ।

সে কেনো এমন কথা দেশের বাইরে বলতে গেলো? কে বা কারা তাকে ওখানে নিয়ে গেলো? কেউ কেউ বলছে, আমেরিকায় থাকার অনুমোতি চায় প্রিয়া সাহা। আমার কাছে বিষয়টা এতটা হালকা মনে হয়নি। আমেরিকায় থাকতে চাওয়ার প্রশ্ন তোলা মানে তার অপরাধকে হালকা করে দেখা। যেমন মিন্নিকে নয়নের জায়গায় তুলে আনা মানে অন্যান্য খুনিদের অপরাধ হালকা করে দেয়া।

প্রিয়া সাহা খুব সচেতন ভাবেই কাজটা করেছে। সে দেশে ফিরে আরো বেশি দেশ বিরোধী সাম্প্রদায়িক বিষ ছড়ালেও কিছু করার থাকবে না। সরকার বাধ্য হবে তার নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে। কারন তার অপরাধের জন্য আইনি বা অন্য কোনো ব্যাবস্থা নিতে গেলেই তার সঙ্গিসাথীরা শোরগোল শুরু করবে। তার কথাগুলো সত্য বলে প্রমাণ করার চেষ্টা করবে। শেখ হাসিনার সরকার মার্কিন চাপের মুখে পড়বে। এসব বুঝেই সে কথাগুলো বলেছে।

কিছুদিন আগে দেশে ‘ইসকন’ নামের এক সংগঠনের আবিরভাব হয়েছে। তারা ‘ফুড ফর লাইফ’ নামের এক কর্মসূচি পালন করতে গিয়ে চট্রগ্রামের এক স্কুলের শিশুদের মধ্যে প্রসাদ বিতরণ করেছে এবং হিন্দুদের ধর্মীয় মন্ত্র পড়তে সকল শিশুদের বাধ্য করেছে। ইসকন হিন্দুদের ধর্মীয় সংগঠন বলে পরিচিত হলেও যদ্দুর জানাযায় এই সংগঠনের পেছনে অর্থায়ন করে ইজরায়েল।

হিন্দু ধর্ম প্রচারের আড়ালে তাদের উদ্দেশ্য ভিন্ন। তারা বাংলাদেশের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট করতে চায়। তা না হলে বাংলাদেশের মতো একটা মুসলিম প্রধান দেশের স্কুলের সব শিশুদের তারা কেনো কৃষ্ণগীত পড়াতে যাবে? বাংলাদেশের এত জায়গা রেখে কেনো চট্রগ্রামকে বেছে নেয়া হবে?

আমরা জানি চট্রগ্রামে বড় বড় কওমি মাদরাসা রয়েছে। দেশের অনেক মুসলিম ধর্মীয় নেতার শেকড় চট্রগ্রামে। সেখানে এমন একটা কাজ করে মূলত মুসলিমদের উস্কানী দেয়া হয়েছে। তারা দেশের মধ্যে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা সৃষ্টি করে আন্তর্জাতিক ভাবে বাংলাদেশকে বিতর্কিত করতে চায়। প্রিয়া সাহাদের কথা সত্য বলে প্রমাণ করতে চায়।

সুতরাং সরকারের উচিৎ এসব বেপারে অধিক সতর্ক হওয়া। তা না করে সরকার যদি মনে করে বিএনপি জামায়াত দমন করেই তারা বা তাদের ক্ষমতা নিরাপদ তা হলে ভুল হবে। মনে রাখা দরকার- বানর লাই দিলে মাথায় ওঠে। তখন মাথার নিরাপত্তা নিয়েই উদ্বেগ শুরু হয়।

লেখক : বিশ্লেষক

নিউজটি শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved 2018 shilonbangla.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com