সোমবার, ২৯ নভেম্বর ২০২১, ০৭:৪৬ অপরাহ্ন

বাকৃবিতে অপূর্ব একগম্বুজ মসজিদ

বাকৃবিতে অপূর্ব একগম্বুজ মসজিদ

বাকৃবিতে অপূর্ব একগম্বুজ মসজিদ

সাইফুল্লাহ ইবনে ইব্রাহিম

অনিন্দ্য সুন্দরের লীলা নিকেতন বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়। এটি উপমহাদেশের অন্যতম ঐতিহ্যবাহী বিদ্যাপিঠ। বারোশ’ একর জমি নিয়ে ময়মনসিংহ সদরে এটি অবস্থিত। একাডেমিক ভবনের দক্ষিণ পাশে ‘বাকৃবি কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ’ তার অন্যতম একটি স্থাপনা। মসজিদটির নির্মাণ কাজ শুরু হয় ১৯৮৩ খ্রিষ্টাব্দে। সে বছরের ৩০ এপ্রিল মসজিদটির ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করেন বিশ্ববিদ্যালয়টির তৎকালীন উপাচার্য প্রফেসর ড. আবুল কালাম মুহাম্মদ আমীনুল হক। দু’বছর পর ১৯৯৫ সালে ২রা জুন মসজিদটির উদ্বোধন করে উপাচার্য প্রফেসর ড. শাহ মোহাম্মদ ফারুক।

মূল মসজিদটির ভেতরে ২৫টি ও বারান্দায় ১০টি, সর্বমোট ৩৫টি কাতার রয়েছে। এখানে একই সাথে প্রায় চার হাজার মুসল্লি নামাজ আদায় করতে পারেন। মসজিদটির বারান্দায় প্রবেশের জন্য পূর্বপাশে ২টি, দক্ষিণ পাশে ১টি ও উত্তরে ১টি, মোট ৪টি দরজা রয়েছে। বারান্দা থেকে থেকে মূল মসজিদে প্রবেশের জন্য ৮টি দরজা রয়েছে। মূল মসজিদের ঠিক মধ্যখানে ১২টি পিলারের উপর স্থাপিত একটি সুবিশাল গম্বুজ; যেটিকে দেশের একগম্বুজ বিশিষ্ট মসজিদগুলোর মধ্যে সর্ববৃহৎ গম্বুজ বলে জানা যায়। এটিই মূলত এই মসজিদের স্থাপত্য শৈলীর সবচেয়ে আকর্ষণীয় দিক। মসজিদের সামনেই রয়েছে বিস্তৃত ঈদগাহ মাঠ।

মসজিদের সাথে ঈদগাহ মাঠের পুরো আঙিনাকে পৃথক তিনটি পৃথিবীর করিডোর দিয়ে বেষ্টন করে রাখা হয়েছে। মসজিদের আঙিনা তথা ঈদগাহ মাঠের চারপাশকে সাজানো হয়েছে রকমারি ফুলের গাছ লাগিয়ে। প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে ঘেরা এই মসজিদটি দেখতে বরাবরই অনিন্দ্য সুন্দর! প্রাচীন কারুকার্যে মোটেও অসুন্দর লাগে না দেখতে। এখানে বাকৃবির ছাত্র-শিক্ষক-কর্মচারীবৃন্দ ছাড়াও প্রতি জুমা ও দুই ঈদের জামাতকে কেন্দ্র করে আশপাশের এলাকা ও দূরদূরান্ত থেকে শত শত মুসল্লি নামাজ পড়তে আসেন; তখন এতো এতো মানুষের এই বৃহৎ জমায়েতের দৃশ্য এক মনোমুগ্ধকর দৃশ্যের অবতারণা করে!

লেখক : সম্পাদক, সাহিত্য সাময়িকী ডিঙি

saifullah6742@gmail.com

শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved 2018 shilonbangla.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com