শুক্রবার, ২২ নভেম্বর ২০১৯, ০৫:২৪ অপরাহ্ন

প্রসঙ্গ ইমাম খতিবদের ঈদ বোনাস

প্রসঙ্গ ইমাম খতিবদের ঈদ বোনাস

প্রসঙ্গ ইমাম খতিবদের ঈদ বোনাস

মাওলানা আমিনুল ইসলাম : মসজিদের ইমাম আর কওমী মাদ্রাসার শিক্ষকগণ কি ঈদ বোনাস ছাড়া থাকবে? মাহে রমজান শেষ হওয়ার পথে। একদিন পরেই ঈদুল ফিতর। সারা দেশের মানুষের মাঝে আনন্দের ঢেউ খেলে যাচ্ছে। দোকান -পাট, বাজার – ঘাট, সব জায়গাতে মানুষের ভিড়। সর্ব স্তরের মানুষ কিন্তু কেনা কাটায় ব্যস্ত।

কিন্তু দুঃখের বিষয়, মসজিদের ইমাম আর কওমী মাদ্রাসার শিক্ষকগণ এখনো কিন্তু রাস্তায় রাস্তায়। সকাল হলে কালেকশনে বের হন কওমীর শিক্ষককেরা। আর সন্ধ্যা অবধি ফেরেন। এই রোজা মুখে তাদের কোন বিশ্রাম নেই। তাদের কোন কেনা কাটা নেই। তারা তাদের পরিবারের জন্য মার্কেট করতে পারছেন না।

বহু কওমী মাদ্রাসার শিক্ষকদের ৫/৬ মাসের বেতন বাকি। সে গুলো এই রমজানে কালেকশনের মাধ্যমে যদি আদায় হয়। যদি শিক্ষকেরা ভাল কালেকশন করতে পারেন, তাহলে তো বেতন পরিশোধ হবে। নতুবা বাকি থেকে যাবে।

এমনি ভাবে মফস্বলে বহু মসজিদ আছে, যে সব ইমামদের বেতন মাসের তা মাসে হয়না। কয়েক মাসের বাকি থাকে।
ওসকল ইমামদের ও এই রমজানের কালেকশন, তারাবীহ এর কালেকশন এবং ঈদের মাঠ কালেকশনের পর বেতন পরিশোধ করা হবে। যদি চাঁদা ঠিকমত ওঠে তাহলে ইমামের বেতন পরিশোধ। আর না উঠলে বাকি থেকে যাবে।

এটা তো বললাম মুল বেতনের কথা। মুল বেতনই তাদের ঠিকমত আসছেনা। আর বোনাস!! যাদের মুল বেতনই ঠিকমত আসেনা, তাদের বোনাস আসবে কোথ্থেকে?

খুবই আশ্চার্যের ব্যাপার। হাজার মসজিদ আমাদের এই দেশে।হাজার হাজার কওমী মাদ্রাসায় যেখানে লক্ষ লক্ষ শিক্ষক।
এই লক্ষ লক্ষ শিক্ষকের বেতন ভাতা অনিশ্চিত। এই লক্ষ লক্ষ শিক্ষক বোনাস থেকে মাহরুম। হাজার হাজার ইমাম সাহেব ঈদ বোনাস থেকে বঞ্চিত।

অথচ এই বিষয়টা নিয়ে কেউ কোন কথা বলেনা। কোন সংগঠন বা কোন নেতা এই ব্যাপারে কোনদিন কথা বলতে দেখলাম না।

আচ্ছা বলুন তো! কওমী মাদ্রাসার এই শিক্ষক এবং মসজিদের ইমাম এরা কি মানুষ নয়? এদের কি স্ত্রী, পুত্র , সন্তান সন্ততি নেই? এদের কি ঈদ উপলক্ষ্যে কিছু কিনতে মনে চায় না?
ওসব শিক্ষকদের ঈদ উপলক্ষ্যে তার ছেলেমেয়েদের নতুন জামা কিনে দিতে মনে চায় না? ওদের ভাল খাবার খেতে মনে চায় না?

তাহলে আজ কেন তারা অবহেলিত? কেন আজ কওমীর শিক্ষকেরা অবহেলিত? কেন আজ মসজিদের ইমাম অবহেলিত?

এজন্য আসুন! আপনারা কথা বলুন এসব বঞ্চিত মানুষের পক্ষে। পাড়ায় পাড়ায় জেগে উঠুন, আর মসজিদের ইমাম এবং মাদ্রাসার শিক্ষককে অবহেলা নয়। তাদের যথাযোগ্য মর্যাদা দিতে হবে। এসব আলেম সমাজ এবং ইমামদের ঈদ বোনাস সহ যাবতীয় সুযোগ সুবিধা পেয়ে যাক এই কামনা।

লেখক : শিক্ষক ও সমাজ বিশ্লেষক

নিউজটি শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved 2018 shilonbangla.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com