রবিবার, ১৯ জানুয়ারী ২০২০, ১০:২০ অপরাহ্ন

প্রশিক্ষণ বিষয়ে কওমীদের ভীতি আর নেই : মাসউদুল কাদির

প্রশিক্ষণ বিষয়ে কওমীদের ভীতি আর নেই : মাসউদুল কাদির

সমাজ সেবা অধিদপ্তর আয়োজিত প্রশিক্ষণমূলকসভায় বক্তব্য রাখছেন মাওলানা মাসউদুল কাদির ছবি : আহমাদ সিরাজী

প্রশিক্ষণ বিষয়ে কওমীদের ভীতি আর নেই : মাসউদুল কাদির

শীলন বাংলা ডটকম : কওমী মাদরাসার শিক্ষার্থীদের মনে প্রশিক্ষণকেন্দ্রীক আর ভীতি নেই দাবি করে ইকরা বাংলাদেশ হবিগঞ্জের প্রিন্সিপাল ও শীলন বাংলাদেশ সভাপতি মাওলানা মাসউদুল কাদির বলেন, একসময় বিভিন্ন ট্রেডে প্রশিক্ষণ নিতে কিছুটা বিব্রত ছিলো কওমী সন্তানরা। কয়েকজন ড্রাইভিংসহ বিভিন্ন ট্রেডে প্রশিক্ষণ নেয়ার পর তাদের ভীতি কমে যায়। নিজেরা উৎসাহিত হয়। এগিয়ে যায় দক্ষতা অর্জনের জন্য।

দক্ষতা অর্জনের সুযোগ তৈরীর পেছনে বেফাকুল মাদারিসিদ্দীনয়া বাংলাদেশ ও ইকরা বাংলাদেশের মহাপরিচালক আল্লামা ফরীদ উদ্দীন মাসঊদের অবদান অনেক বেশি দাবি করে তিনি বলেন, ফরীদ উদ্দীন মাসঊদ সাহেবের অনুরোধেই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কওমী সন্তানদের জন্য এই সুযোগ সৃষ্টি করে দিয়েছেন।

শুধু সমাজসেবায় ৯৯৯ জন প্রশিক্ষণ গ্রহণকে একটি মাইলফলক উল্লেখ করে মাসউদুল কাদির বলেন, জীবনে সবাইকে প্রশিক্ষণ নেয়া উচিত। কওমী সন্তানদের ভীতি কমে গেছে। তাদের দক্ষতা অর্জনের মাধ্যমে দেশের উন্নয়নে অবদান রাখার সময় চলে এসেছে।
মঙ্গলবার (০৭ জানুয়ারি) বাদ জোহর সমাজ সেবা অধিদপ্তর আয়োজিত শুভেচ্ছা বক্তব্যে মাওলানা মাসউদুল কাদির এসব বলেন।

একসেস টু ইনফরমেশন ও সমাজ সেবা অধিদপ্তর কওমী মাদরাসার শিক্ষার্থীদের দক্ষতা উন্নয়নমূলক কার্যক্রম পরিচালনা করায় সংযুক্ত সবাইকে অভিনন্দন জানান।

কসেস টু ইনফরমেশন দেশের কওমী মাদরাসা শিক্ষার্থীদের প্রশিক্ষণ দিয়ে নিজের কাজের বাইরেও তাদের আয় রোজগারের পথ খোলে দিয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশ জমিয়তুল উলামার চেয়ারম্যান, শোলাকিয়া ঈদগাহের গ্র্যান্ড ইমাম, শাইখুল হাদীস আল্লামা ফরীদ উদ্দীন মাসঊদ। তিনি বলেছেন, কাজের মধ্যে কোনো দোষ নেই। বরং একজন কৃষকের মূল্য আমার কাছে অনেক বেশী। দেশের সর্বোচ্চ কর্মকর্তাও সরকারের দাসানুদাস। কিন্তু একজন দিনমজুর, কৃষক, চাষী ক্ষেতে খামারে কাজ করে দেশকে এগিয়ে দিচ্ছে। দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে অবদান রাখছে। তাদের টেক্সের টাকায় সরকারি কর্মচারিদের বেতন-ভাতা হচ্ছে।

সমাজ সেবা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক গাজী মুহাম্মদ নুরুল কবীর বলেন, কওমী মাদরাসার শিক্ষার্থীদের মধ্যেও অনেক প্রতিভাধর লুকিয়ে আছে। আমি আপনাদেরর মূলস্রোতে আছেন বলেই মনে করি। তবে যুগের চলনসই হয়ে বহুমাত্রিক কার্যপরিধি বিস্তৃত করাটাও সময়ের দাবি।

দক্ষতা অর্জনের পথে কওমী তরুণদের স্বাগত জানিয়ে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব ডক্টর আবদুল মান্নান বলেন, আমি অনেক খুশি কওমী মাদরাসার আলেমগণ দক্ষতা অর্জনের মিছিলে শামিল হয়েছেন। আমি অভিভূত হয়েছি, কওমী সন্তানরা কম্পিউটার গ্রাফিক্সে ভালো করছে। আমি মনে করি, তারা যেহেতু অনেকগুলো ভাষা জানেন, তাদের সুযোগও অনেক বেশী। তাদের মেধায় গভীরতা আছে বলে ইন্টারনেটে অনুবাদের কাজও করতে পারছে। আমি যখন শুনি, প্রশিক্ষিত হয়ে একজন উবার চালাচ্ছেন তখন আমি ভীষণ খুশি হই।

এছাড়াও বক্তব্য রাখেন ইকরা সমন্বয়কারী মাওলানা আবদুল্লাহ শাকিরসহ আরও অনেকে।

নিউজটি শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved 2018 shilonbangla.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com