সোমবার, ১৮ জানুয়ারী ২০২১, ০২:১৮ অপরাহ্ন

নূর হোসাইন কাসেমীর ইন্তেকালে আল্লামা আবু মূসার শোক

নূর হোসাইন কাসেমীর ইন্তেকালে আল্লামা আবু মূসার শোক

নূর হোসাইন কাসেমীর ইন্তেকালে আল্লামা আবু মূসার শোক

শীলন বাংলা ডটকম : হেফাজতের ইসলামের মহাসচিব আল্লামা নূর হোসাইন কাসেমীর ইন্তেকালে গভীর শোক ও সমবেদনা জ্ঞাপন করেছেন জামিআ আফতাবনগর ও আবদুল হাফিজ তাহসীনুল কোরআন মাদরাসার সদরুল মুদাররিসীন আল্লামা আবু মুসা। তিনি বলেন, আমাদের এতিম বানিয়ে আমাদের উস্তাদ চলে গেছেন মহান আল্লাহর সান্নিধ্যে। তাকে জান্নাতের সুউচ্চ মর্যাদায় আল্লাহ তাআলা অভিষিক্ত করুন।

আল্লামা আবু মুসা স্মৃতি রোমনন্থন করে বলেন, এমন রাহবার, এমন মুর্শিদ আর পাবো না। সবাইকে তিনি নিজের সন্তানের মতো মনে করতেন। সেই ছোটবেলা থেকে এ বয়স পর্যন্ত কখনোই তার ভালোবাসা পাওয়া থেকে বঞ্চিত হইনি। আল্লাহ তাআলা তার ছায়াকে তুলে দিয়েছেন। এ মুহূর্তে আমাদের আল্লাহর কাছে ফিরে যেতে হবে। দুনিয়ার ভালোবাসায় পড়ে থাকলে চলবে না। এমন বড় বুজুর্গকে তুলে নেয়াটা ভালো লক্ষ্মণ নয়। আল্লাহ তাআলা আমাদেরকে রহম করুন।

রোববার (১৩ ডিসেম্বর) দুপুর ১২টা ৫০ মিনিটের দিকে রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালের আইসিইউতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আল্লামা নূর হোসাইন কাসেমী ইন্তেকাল করলে গণমাধ্যমে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জামিআ আফতাবনগর ও আবদুল হাফিজ তাহসীনুল কোরআন মাদরাসার সদরুল মুদাররিসীন আল্লামা আবু মুসা শোক ও পরিবারের প্রতি সমবেদনা জ্ঞাপন করেন।

এদিকে ইউনাইটেড হাসপাতালের কমিউনিকেশন বিভাগের দায়িত্বে থাকা ডা. সাগুফা আনোয়ার জানান, নূর হোসেন কাসেমী দুপুর ১২টা ৫০ মিনিটে মারা গেছেন।

গত ১ ডিসেম্বর শ্বাসকষ্টজনিত কারণে অসুস্থতাবোধ করলে তাকে রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বৃহস্পতিবার (১০ ডিসেম্বর) রাতে হঠাৎ শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে তাৎক্ষণিক তাকে আইসিইউতে স্থানান্তর করা হয়। নূর হোছাইন কাসেমীর ঠাণ্ডা ও শ্বাসকষ্ট থাকলেও কয়েকদফা করোনা ভাইরাস পরীক্ষায় নেগেটিভ ফলাফল এসেছে বলেও জানা যায়।

নূর হোছাইন কাসেমী হেফাজতে ইসলাম প্রতিষ্ঠার পর থেকে সংগঠনটির ঢাকা মহানগর সভাপতির দায়িত্ব পালন করছিলেন। সংগঠনের আমির আল্লামা আহমদ শফির মৃত্যুর পর গত ১৫ নভেম্বর নতুন করে কমিটি গঠন করা হয়। ওই কমিটিতে আল্লামা বাবুনগরীকে আমির ও নূর হোছাইন কাসেমীকে মহাসচিব নির্বাচিত করা হয়।

তিনি একাধারে হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ ও জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের মহাসচিব, আল হাইআতুল উলয়ার সহ-সভাপতি, বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়া বাংলাদেশের সিনিয়র সহ-সভাপতি এবং জামিয়া মাদানিয়া বারিধারা ঢাকা ও জামিয়া সোবহানিয়া মাহমুদ নগরের শায়খুল হাদিস ও মহাপরিচালক। হেফাজত আন্দোলন, খতমে নবুয়ত আন্দোলনসহ প্রভৃতি আন্দোলনে তিনি নেতৃত্বস্থানীয় ভূমিকা পালন করেছেন এবং ইসলামি নেতা হিসেবে মুসলিম জনসাধারণের মাঝে তার পরিচিতি রয়েছে। এছাড়াও তিনি প্রায় ৪৫টি মাদ্রাসা পরিচালনার কাজে যুক্ত রয়েছেন।

কাসেমীর মৃত্যুতে শোক জানিয়েছেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান, মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ দলীয় নেতারা। এছাড়া শোক জানিয়েছেন, হেফাজতে ইসলামীর আমির আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী ও চরমোনাইর পীর মুফতি সৈয়দ মুহাম্মদ রেজাউল করীম।

নিউজটি শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved 2018 shilonbangla.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com