সোমবার, ২৩ মে ২০২২, ০৮:২৬ পূর্বাহ্ন

দেওবন্দে খতমে বুখারির আনুষ্ঠানিকতা

দেওবন্দে খতমে বুখারির আনুষ্ঠানিকতা

পবিত্র বুখারি শরিফের খতমে রয়েছে অনেক পুণ্য। এ থেকেই বাংলাদেশের সব মাদরাসাগুলোতে অনেকটা রেওয়াজে পরিণত হয়েছে এই খতমে বুখারি আনুষ্ঠানিকতা। এবার কওমি মাদরাসার মূল কেন্দ্র দারুল উলূম দেওবন্দে কোনো আনুষ্ঠানিকতা ছাড়াই হয়েছে খতমে বুখারির দারস। এ কওমি মাদরাসার শিক্ষাবর্ষ শাওয়াল মাসে ভর্তি পরীক্ষা দিয়ে শুরু হয়ে শাবান মাসে বার্ষিক পরীক্ষার মাধ্যমে শেষ হয়। ফলে রজব মাসে বিভিন্ন শ্রেণীতে বিভিন্ন কিতাবের শেষ সবক পড়ানো হয়। বেশিরভাগ মাদ্রাসার সর্বোচ্চ শ্রেণির বিশেষ কিতাবের শেষ সবক নিয়ে থাকে অন্য রকম আয়োজন। বিশেষ করে দাওরায়ে হাদিস পর্যন্ত মাদরাসাগুলো বুখারি শরিফের শেষ হাদিস পড়ানো নিয়ে করে এক মহাআয়োজন।

সারা বছরজুড়ে যেসব শিক্ষকগণ একা অথবা দুজনে মিলে বুখারি শরিফ পড়ান, শেষ হাদিস পড়ানোর জন্য তাদের বাদ দিয়ে অন্য জায়গা থেকে শাইখুল হাদিস দাওয়াত দিয়ে আনা হয়।
শেষ হাদিস পড়া নিয়ে দারুল উলুম দেওবন্দে ছিলো না কোনো আয়োজন। বৃহস্পতিবার স্থানীয় সময় দুপুর প্রায় ১টার দিকে দারুল উলূম দেওবন্দের নতুন লাইব্রেরিতে অবস্থিত দারুল হাদিসে পড়ানো হয়েছে বিখ্যাত হাদিস গ্রন্থ ‘বুখারি শরিফে’র শেষ হাদিস।

প্রতিদিনের মতো আজও দারুল উলুম দেওবন্দের শাইখে ছানি আল্লামা কমরুদ্দিন গৌরখপুরি বেলা প্রায় ১১টার দিকে আসেন দারুল হাদিসে। লাঠি ভর দিয়ে আস্তে আস্তে প্রবেশ করেন ভিতরে। প্রতিদিনের মতো বসে পড়েন পুরোনো সেই চৌকিতে। কোনো রকম কোনো হৈ হুল্লোড় নেই। ফলে দুআয় অংশগ্রহণ করতে শেষ মুহূর্তে বিভিন্ন শ্রেণির কিছু ছাত্র এলেও আসেনি কোনো শিক্ষক। পড়াতে পড়াতে দুপুর প্রায় ১টার দিকে পড়ালেন বুখারি শরিফের শেষ হাদিস। তারপর সংক্ষিপ্ত দুআ করে আসন ছেড়ে উঠে দাঁড়ালেন।

-জীবন ও ইসলাম ডেস্ক

শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved 2018 shilonbangla.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com