বৃহস্পতিবার, ২১ নভেম্বর ২০১৯, ০৬:১০ অপরাহ্ন

দারুল উলূম দেওবন্দে পুলিশি তল্লাশি, মিশ্র প্রতিক্রিয়া

দারুল উলূম দেওবন্দে পুলিশি তল্লাশি, মিশ্র প্রতিক্রিয়া

দারুল উলূম দেওবন্দে পুলিশি তল্লাশি, মিশ্র প্রতিক্রিয়া

শীলন বাংলা ডটকম : ভারতের ঐতিহ্যবাহী দ্বীনি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান দারুল উলূম দেওবন্দে হেলিপোর্ট নির্মাণের অভিযোগের জেরে শনিবার (৩ জুলাই) মাদরাসায় তল্লাশি চালিয়েছে স্থানীয় জেলা প্রশাসন। এ নিয়ে দেখা দিয়েছে ভারতের রাজনীতিবিদ, শিক্ষাবিদদের মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়া।

তল্লাশিতে জেলা পুলিশ কর্মকর্তা অলোক পান্ডে, এসএসপি দীনেশ কুমার ও পুলিশ প্রশাসনের একাধিক কর্মকর্তা উপস্থিত ছিলেন। অফিসাররা দারুল উলূম দেওবন্দের সীমানায় নির্মাণাধীন শাইখুল হিন্দ লাইব্রেরির উপরে হেলিপোর্ট নির্মাণের বিষয়ে অনুসন্ধান করেন।

ভারতের অনলাইন পোর্টাল আসরে হাজিরকে ডিএম অলোক পান্ডে জানা, আমরা তদন্ত করেছি। গ্রন্থাগারসহ হেলিপোর্ট নির্মাণের অনুমতি নেওয়া হয়নি দারুল উলূম দেওবন্দ থেকে। তাই এসডিএম সহ পিডব্লিউডিকে এর প্রযুক্তিগত সক্ষমতাসহ ইত্যাদি যাচাইয়ের জন্য দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। প্রযুক্তিগত প্রতিবেদন পাওয়ার পরে এ ক্ষেত্রে কী ব্যবস্থা নেওয়ার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

জানা যায়, মুখ্যমন্ত্রী দপ্তরে অভিযোগ করা হয়েছিল, দারুল উলূম দেওবন্দ বিশাল লাইব্রেরির ছাদে হেলিপোর্ট তৈরির প্রস্তুতি চলছে। এ অভিযোগ তদন্ত করতে ডিএমসহ সমস্ত কর্মকর্তা দারুল উলূমে পৌঁছেন।

এর আগে দারুল উলূম দেওবন্দের সীমানায় নির্মাণাধীন শাইখুল হিন্দ লাইব্রেরি ভবনের তথ্য চেয়ে নোটিশ পাঠিয়েছে সাহারানপুরের ডি এম। এমন খবরে দারুল উলূম দেওবন্দ কতৃপক্ষ যারপরনাই বিস্মিত হয়েছেন এবং ভারতের সাধারণ মুসলিমরা গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন।

এ ব্যাপারে সাহারানপুরের ডি এম অলোক কুমার পান্ডে বলেছেন, জে আই দেওবন্দের মাধ্যমে আমি জানতে পারি, দারুল উলূম দেওবন্দের সীমানায় একটি বড় লাইব্রেরি ভবন নির্মিত হচ্ছে এবং এই ভবনের ওপরে হেলিকপ্টার অবতরনের জন্য হেলিপোর্ট নির্মিত হচ্ছে। আমি দারুল উলূম দেওবন্দের মুহতামিম মুফতি আবুল কাসেম নোমানী কে এস ডি এম দেওবন্দের মাধ্যমে গত ২৬ শে জুন ২০১৯ ভবন নির্মানের অনুমতিপত্র, এনওস এবং হেলিপোর্ট নির্মান সম্পর্কিত যাততীয় তথ্য এক সপ্তাহের মধ্যে দেয়ার জন্য নোটিশ পাঠিয়েছিলাম।

তারই ধারাবাহিকতায় দেওবন্দের মুহতামিম মুফতি আবুল কাসেম নোমানী গত ৪ জুলাই ২০১৯ লিখিতভাবে শুধুমাত্র এতটুকু জবাব দিয়েছিলেন যে, লাইব্রেরি ভবনের উপরে কোন হেলিপোর্ট নির্মান হচ্ছে না বলেন পান্ডে।

সাহারানপুরের ডিএম এর পক্ষ থেকে জানানো হয়, মুহতামিমের পক্ষ থেকে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে প্রাপ্ত চিঠিতে সমস্ত প্রশ্নের সন্তোষজনক উত্তর পাওয়া যায়নি। নির্ধারিত সময় অতিবাহিত হওয়ার পরে গত ২০শে জুলাই ২০১৯ দ্বিতীয়বার মুহতামিম বরাবর নোটিশ জারি করে নির্মাণাধীন লাইব্রেরি ভবনের যাবতীয় তথ্যাদি চাওয়া হয়েছে।

সাহারানপুর ডিএম-ুর পক্ষ থেকে আরও জানানো হয়, নির্দিষ্ট সময়ের মাঝে প্রয়োজনীয় তথ্য না পাওয়া গেলে আর বি ও আইন ১৯৫৮ অনুযায়ী দারুল উলুম দেওবন্দের সীমানায় চলমান নির্মাণ কার্যক্রম বন্ধ করে দেয়া হবে।

এ বিষয়ে দারুল উলুম দেওবন্দের মুহতামিম মুফতি আবুল কাসেম নোমানী বলেন, দারুল উলুম দেওবন্দের সমস্ত ভবন সরকারী নিয়মানুযায়ী নির্মিত হচ্ছেে। তবুও যদি সরকারের পক্ষ থেকে কেউ রিসার্চ করতে আসে, তাহলে আমরা তাকে স্বাগত জানাবো।

সূত্র : আসরে হাজির, দিল্লি

নিউজটি শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved 2018 shilonbangla.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com