মঙ্গলবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১১:৩০ পূর্বাহ্ন

খুলনার ইসলাহী ইজতেমায় মুসলিম উম্মাহর শান্তি কামনা

খুলনার ইসলাহী ইজতেমায় মুসলিম উম্মাহর শান্তি কামনা

খুলনার ইসলাহী ইজতেমায় মুসলিম উম্মাহর শান্তি কামনা

শীলন বাংলা রিপোর্ট : জিকিরে সবসময় আল্লাহকেই স্মরণ করার আহ্বান জানিয়েছেন জানিয়েছেন বাংলাদেশ জমিয়তুল উলামার চেয়ারম্যান, শোলাকিয়া ঈদগাহের গ্র্যান্ড ইমাম, আওলাদে রাসূল, ফিদায়ে মিল্লাত মাওলানা সাইয়্যিদ আসআদ মাদানী রহ.-এর খলিফা শাইখুল হাদীস আল্লামা ফরীদ উদ্দীন মাসঊদ।  তিনি বলেন, আল্লাহ নামের জিকিরের স্বাদ, আল্লাহ নামের স্বাদ কখনো কমে না, বরং যত বেশি বেশি করবে ততো স্বাদ বৃদ্ধি পাবে। আল্লার নামের জিকিরে কখনো বিরক্তিও আসে না। যে ব্যক্তি যত বেশি জিকির করবে সে আল্লাহর কাছে ততো প্রিয় হতে থাকবে। দুনিয়া ও আখেরাতে আল্লাহ ও আল্লাহর নামের জিকিরের চাইতে মধুর কোন শব্দ নেই।

জামিআ মাদানিয়া আসআদুল উলূম মাদানীনগর মিলনায়তনে বাংলাদেশ জমিয়তুল উলামা খুলনা জেলা শাখা আয়োজিত ৩ দিন ব্যাপি ইসলাহী ইজতেমার আখেরা মোনাজাতের আগমুহূর্তে আল্লামা ফরীদ উদ্দীন মাসঊদ এসব কথা বলেন।

আল্লাহ নামের জিকির কারো জন্য অনেক সহজ, কারো জন্য মাত্রাতিরিক্ত কঠিন উল্লেখ করে শোলাকিয়া ঈদগাহের গ্র্যান্ড ইমাম বলেন, জিহ্বায় আল্লাহ নাম আসাটা অনেক বেশি কঠিন। কতটা কঠিন সেটা বলে বোঝানো যাবে না। বুঝতে হলে ফেরাউন, আবু জেহেল, আবু লাহাব’কে জিজ্ঞেসা করতে হবে। আর আল্লাহর প্রিয় বান্দা এবং মুমিনদের জন্য আল্লাহ নামের জিকিরটা খুবই সহজ। মুমিনের জন্য জিকিরের চাইতে সহজ কোন শব্দ নেই। আমরা আল্লাহ কাছে শুকরিয়া আদায় করি, আল্লাহ আমাদের জিহ্বায় তার নাম আসাটা সহজ করে দিয়েছেন। আমরা সহজেই তার নামের জিকির করতে পারি।

ইজতেমা শেষে বাড়িতে গিয়ে ইসলাহী ইজতেমার আমলগুলোর প্রতি যত্নবান থাকা কথা উল্লেখ করে আল্লামা মাসঊদ আগত মুসল্লীদের উদ্দেশে বলেন, ভাই! আমরা এখানে যেসব আমল করেছি, সেসব আমল যেন বাড়িতে গিয়ে ভুলে না যাই। আমাদের এই আমলগুলো যেন অভ্যাহত থাকে। আমরা এই আমলগুলো পরিবারের সবাইকে নিয়ে সবসময় করার চেষ্টা করবো। এই প্রতিজ্ঞা করি এখানে বসে থাকতেই।

সোমবার (১ জুলাই) সকাল ৭টায় আল্লামা ফরীদ উদ্দীন মাসঊদ-এর খলিফা, রংপুরের পীর মাওলানা হোসাইন আহমদ আখেরি মোনাজাত পরিচালনা করেন। মোনাজাতে আল্লাহর কাছে ক্ষমাপ্রার্থনা ও দেশ-জাতি এবং মুসলিম উম্মাহের জন্য শান্তি কামনা করেন তিনি।

খুলনা থেকে যাত্রার সময়ে উপস্থিত সবাইকে নিয়ে আবারও আখেরী মোনাজাত করেন আল্লামা ফরীদ উদ্দীন মাসঊদ। তখন খুলনা মাদানীনগর মাদরাসার মাঠে দাঁড়িয়ে ভক্ত ও মুসল্লীরা কান্নায় ভেঙে পড়েন।

এর আগে নবীপ্রেমের শ্রেষ্ঠ নিদর্শন দরূদ উল্লেখ করে শাইখুল হাদীস আল্লামা ফরীদ উদ্দীন মাসঊদ বলেছেন, দরুদ শরীফ গুরুত্বপূর্ণ একটি আমল। এ আমলের মাধ্যমে একসঙ্গে আল্লাহ ও তাঁর রাসূলের সন্তুষ্টি পাওয়া যায়। এটি মুমিনের আত্মার খোরাক এবং প্রিয় তাসবিহ। আমাদের পেয়ারে নবীজী হযরত মুহাম্মদ রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে ভালোবাসার শ্রেষ্ঠ নিদর্শন তাঁর উপর দরূদ প্রেরণ করা।

আল্লামা মাসঊদ বলেন, পবিত্র কুরআনুম মাজীদের পরেই দরূদ শরীফের মর্যাদা। হাদীস শরীফে দরূদ পড়ার পদ্ধতি, উপকারিতা, না-পড়ার ক্ষতি সম্পর্কে বিশদ বিবরণ আছে, পবিত্র কোরআনেও এর ব্যাপক তাগিদ দেয়া হয়েছে। স্বয়ং আল্লাহ ও তাঁর ফেরেশতারা নবীজী ওপর দরূদ প্রেরণ করেন। নবীজী উপর বেশি বেশি দরূদ প্রেরণ করার কথা বলেন তিনি।

রোববার (৩০ জুন) জামিআ মাদানিয়া আসআদুল উলূম মাদানীনগর খুলনা-এর বুখারী শরীফের ইফতেতাহী দরসে মাওলানা সাইয়্যিদ আসআদ মাদানী রহ.-এর খলীফা আল্লামা ফরীদ উদ্দীন মাসঊদ বলেন, আমাদের উপর আল্লাহ তাআলার নিয়ামত অসংখ্য অগণিত। তবে সবচেয়ে বড় নিয়ামত ইলম।

আল্লাহ তাআলার তার নির্বাচিত বান্দাদেরকে ইলমে ওহীর জ্ঞান দান করেন উল্লেখ করে বাংলাদেশ জমিয়তুল উলামার চেয়ারম্যান বলেন, আল্লাহ সবাইকে ইলম অর্জনের যোগ্যতা দিয়েছেন। সবাইকে ইলম দান করেন। তবে ইলমে ওহীর জ্ঞান আল্লাহ তাআলা সবাইকে দেন না। ইলমে ওহীর জ্ঞান একমাত্র তার নির্বাচিত বিশেষ এক শ্রেণীর বান্দাদেরকে দান করেন।

আল্লাহ নামের জিকির কারো জন্য অনেক সহজ, কারো জন্য মাত্রাতিরিক্ত কঠিন উল্লেখ করে শোলাকিয়া ঈদগাহের গ্র্যান্ড ইমাম বলেন, জিহ্বায় আল্লাহ নাম আসাটা অনেক বেশি কঠিন। কতটা কঠিন সেটা বলে বোঝানো যাবে না। বুঝতে হলে ফেরাউন, আবু জেহেল, আবু লাহাব’কে জিজ্ঞেসা করতে হবে। আর আল্লাহর প্রিয় বান্দা এবং মুমিনদের জন্য আল্লাহ নামের জিকিরটা খুবই সহজ। মুমিনের জন্য জিকিরের চাইতে সহজ কোন শব্দ নেই। আমরা আল্লাহ কাছে শুকরিয়া আদায় করি, আল্লাহ আমাদের জিহ্বায় তার নাম আসাটা সহজ করে দিয়েছেন। আমরা সহজেই তার নামের জিকির করতে পারি।

এর আগে তালিমী হালকায় মাওলানা সাইয়্যিদ আসআদ মাদানী রহ.-এর খলীফা আল্লামা ফরীদ উদ্দীন মাসঊদ বলেন, ঈমান শিখতে হয় এবং বৃদ্ধি করতে হয় দুই ভাবে। ১. আফাক অর্থাৎ পরিবেশ-প্রকৃতি দেখে। ২. নিজেকে দেখে। নিজেকে নিয়ে চিন্তা-ভাবনা করার মাধ্যমে। তিনি বলেন, স্রষ্টার সৃষ্টির মাঝেই তিনি বিদ্যমান। তাঁর সৃষ্টির মাঝেই খুঁজলে তাকে পাওয়া যায়। ঈমান বৃদ্ধি পায়।

বিজ্ঞান কখনো সত্যের মাপকাঠি হতে পারে না মন্তব্য করে বাংলাদেশ জমিয়তুল উলামার চেয়ারম্যান বলেন, বিজ্ঞানের জন্ম সন্দেহ থেকে। সন্দেহ কখনো সত্যের মাপকাঠি হতে পারে না। প্রকৃত সত্য হলো ইসলাম, দ্বীন। বিজ্ঞান যদি প্রকৃত সত্যে পৌঁছতে পারে, তাহলে অবশ্যই সে ইসলামের দিক-নির্দেশনার সাথে মিলে যাবে। না’হলে কেবল বিভ্রান্তি ছড়াবে।

এর আগে শনিবার (২৯ জুন) ইসলামী ইজতেমার বয়ানে মাওলানা সাইয়্যিদ আসআদ মাদানী রহ.-এর খলীফা আল্লামা ফরীদ উদ্দীন মাসঊদ বলেন, আল্লাহ তাআলা মানুষকে সৃষ্টি করেছেন। এই সুন্দর পৃথিবীকেও তিনি মানুষের জন্য সৃষ্টি করেছেন। তবে একদিন পৃথিবীর সবকিছুই নিঃস্ব হয়ে যাবে, তোমাকে আবার আল্লাহ কাছেই ফিরে যেতে হবে।

একমাত্র আল্লাহ তাআলাই আদি ও অনন্ত উল্লেখ করে শোলাকিয়া ঈদগাহের গ্র্যান্ড ইমাম বলেন, সকল প্রশংসা মহান আল্লাহ তাআলার। যিনি আদি-অনন্ত, ব্যক্ত ও গুপ্ত এবং যিনি সর্ববিষয়ে সম্যক অবহিত। আমাদেরকে তাঁর দিকেই ফিরে যেতে হবে। তাঁর সাথেই আমাদের সম্পর্ক তৈরি করতে হবে। তাঁর ইবাদত ও হুকুম আহকাম পালন করতে হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved 2018 shilonbangla.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com