শুক্রবার, ২৬ এপ্রিল ২০১৯, ০৮:৪৮ পূর্বাহ্ন

কওমীর ঐতিহ্যে আঘাত

কওমীর ঐতিহ্যে আঘাত

দারুল উলূম দেওবন্দ, ভারত

কওমীর ঐতিহ্যে আঘাত

মাওলানা আমিনুল ইসলাম : দেড়শ বছর ধরে একটানা সুনাম সুখ্যাতি নিয়ে চলে আসা কওমী মাদ্রাসা। গৌরব এবং ঐতিহ্যে শীর্ষে এধারার শিক্ষা ব্যবস্হা।
কওমী মাদ্রাসার ইতিহাস ঐতিহ্য অবদান আমাদের সকলেরই জানা। সেই বৃটিশ খেদাও আন্দোলন, এদেশকে পরাধীনতার জিন্জির থেকে মুক্ত করেছিল এই কওমী মাদ্রাসা। যার গোড়া দারুল উলুম দেওবন্দ। আর এর গোড় পত্তন হয়ে ছিল, দ্বীন ইসলামকে টিকিয়ে রাখা এবং এদেশেকে শত্রুর রাহু গ্রাস থেকে বের করে মজলুম মানুষকে মুক্তি দেওয়া।

কওমীর মাদ্রাসার শুরু থেকেই গৌরবের সাথে চলে আসছে। বহু ত্যাগ- তিতিক্ষা এবং কোরবানীর মাধ্যমে এই ধারার প্রতিষ্ঠান টিকে রয়েছে। আর এই কোরবানীর বদৌলতে কওমী মাদ্রাসার সন্তানেরা বিশ্বব্যাপি ছড়িয়ে পড়েছে। বহু ইজ্জত এবং সুনামের সাথে রয়েছে এই সন্তানেরা। আজও পর্যন্ত কোথাও কোন অঘটন দেখা যায়নি।

দারুল উলুম দেওবন্দের এই সিলসিলার যত প্রতিষ্ঠান এই পৃথিবীর বুকে গড়ে উঠেছে, সব প্রতিষ্ঠান গুলোই ব্যতিক্রম ধর্মী। তালীম, তরবিয়ত, আমল – আখলাক, সব কিছুতেই ব্যতিক্রম। এ প্রতিষ্ঠান থেকে যারা ফারেগ হয়, তারাও সব বে মেছাল।

কওমী মাদ্রাসার ফুজালাদের সাথে পৃথিবীর অন্য কোন প্রতিষ্ঠানের ফারেগীনদের সাথে তুলনা চলেনা।

আর একারনে কওমী মাদ্রাসা সকলের সেরা এক প্রতিষ্ঠান।

এ প্রতিষ্ঠানের যারা পরিচালক হন, তারা থাকেন অত্যান্ত আমানতদার। বিলকুল কখনও কোথাও খেয়ানত করেন না। উস্তাদগণ ছাত্রদের আমানত মনে করেন। অত্যান্ত আমানত দারীর সাথে শিক্ষকগণ ছাত্রদের তালীম দিয়ে থাকেন। যুগ যুগ ধরে চলছে এভাবে। কওমী মাদ্রাসার শুরু থেকে এ পর্যন্ত কোনদিন কোন খেয়ানতের অভিযোগ ওঠেনি।

অত্যান্ত পরিতাপের বিষয় , দেড়শত বছর পরে কওমীর ঐতিহ্যে এক বড় আঘাত এসে পড়ল। কালিমা লেপন করা হল এই সুনাম সুখ্যাতি প্রতিষ্ঠান গুলোর উপর।
প্রশ্ন ফাঁসের কোন ঘটনা কওমী মাদ্রাসার ইতিহাসে নেই। আজ পর্যন্ত কোথাও কোন প্রতিষ্ঠানে প্রশ্ন ফাঁসের কথা শোনা যায় নি। এই দেড়শ বছর খুবই আমানতদারীর সাথে চলে আসছে। ইতিপুর্বে বিভিন্ন সময় প্রশ্ন ফাঁসের অভিযোগ ছিল। তবে সেগুলো শুধু গুন্জনই ছিল। স্পষ্ট কোন তথ্য পাওয়া গিয়েছিল না।

কিন্তু এবার আর কোন গুজব নয়। স্পষ্ট হয়ে উঠল সবার কাছে। কর্তৃপক্ষ সকল পরীক্ষা বাতিল করলেন। আগামী ২৩ তারিখ থেকে আবার পরীক্ষা।

এঘটনায় এদেশের আলেম সমাজ খুবই মর্মাহত। যা কোনদিন হয়নি, তা এবার ঘটে গেল। আমরা গর্ব করতাম। কিন্তু এবার আমাদের কি আর মুখ থাকল? শত শত বছরের ঐতিহ্যে এক শ্রেণীর আলেম নামের ব্যক্তিবর্গ আঘাত দিলেন। এবং আমানতে খেয়ানত করলেন। কওমী মাদ্রাসাকে কলঙ্কিত করলেন। যেটা অত্যান্ত দুঃখজনক।

তবে হাইয়াতুল উলয়া কর্তৃপক্ষের কাছে বিনীত অনুরোধ। ঘটনা তদন্ত করে অত্যান্ত শক্ত হাতে জড়িত ব্যক্তিদের শাস্তির আওতায় নিয়ে আসুন। যাতে অদুর ভবিষ্যতে এধরনের ঘটনার পুনরাবৃত্তি না ঘটে।

আল্লাহ হেফাজত করুন। আমিন।
লেখক : শিক্ষক ও সমাজ বিশ্লেষক

নিউজটি শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved 2018 shilonbangla.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com