বুধবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২০, ০৬:৪৭ পূর্বাহ্ন

ইসলাম আছে ইসলাম থাকবে

ইসলাম আছে ইসলাম থাকবে

ইসলাম আছে ইসলাম থাকবে

আমিনুল ইসলাম কাসেমী : শায়খুল হাদীস আল্লামা আজিজুল হক রহ,, তাঁর জীবদ্দশায় আমাদের মাদ্রাসার এক প্রোগ্রামে এসেছিলেন। হুজুরের বয়ান ছিল অনেক চমৎকার। অত্যান্ত সাবলীল ভাষায় বক্তৃতা করতেন। খুব সহজে স্রোতারা মজে যেত। দেড় / দুই ঘন্টা বক্তৃতা করলেও স্রোতারা কখনো বিরক্ত বোধ করে নি। বরং খুবই মনযোগ সহকারে তাঁর কথাগুলো শুনেছে সবাই।

সেবার তিনি বক্তৃতা করছিলেন, খুষ্টান মিশনারী এবং ইসলাম বিদ্বেষী এনজিওদের অপতৎপরতা সম্পর্কে। অত্যান্ত চমকপ্রদ উপস্হাপনার মধ্য দিয়ে তিনি আলোচনার বিষয়বস্তুগুলো তুলে ধরছিলেন। আবার মাঝে মাঝে অত্যান্ত যুগপোযোগী উদাহরণ পেশ করছিলেন। এক পর্যায়ে তিনি একটা চমৎকার উদাহরণ পেশ করেন। যেটা স্রোতাদের কাছে খুব গ্রহণযোগ্যতা পেয়েছিল।

” শায়খুল হাদীস আল্লামা আজীজুল হক রহ,, বলেছিলেন, চোরেরা যখন মানুষের ঘরে চুরি করার জন্য সিঁদ কাটে, সিঁদ কাটা হয়ে গেলে আগেই সে প্রবেশ করেনা। প্রথমে সে একটা বাঁশের মাথায় মাটির হাড়ি দিয়ে ঐ সিঁদের এর রাস্তা দিয়ে ঢোকায়। এখানে সে যাচাই করে আসলে গার্হস্হ সজাগ আছে কিনা। যদি বাড়িওয়ালা সজাগ থাকে তাহলে তো কোন বিপদ আসলে ঐ মাটির হাড়ি আর বাঁশের উপরে গিয়ে পড়বে। নিজে পিছু হটবে।

হুজুর বলেছিলেন, বর্তমানে খৃষ্টান মিশনারী এবং কতিপয় ইসলাম বিদ্বেষী এনজিও এধরনের ফন্দি এঁটেছে। ওরা বিভিন্ন সময়ে কিছু একটা করে দেখে, মুসলমানগণ আসলে সজাগ আছে কিনা। নাকি ঘুমিয়ে।

বর্তমানে একজন ল,ইয়ার – আইনজীবী, অশোক কুমার সাহেব, হঠাৎ তিনি সংবিধান থেকে রাষ্ট্রধর্ম ইসলামকে বাদ দেওয়ার জন্য লিগ্যাল নোটিশ দিয়েছেন। এক দুঃসাহস , দুরভিসন্ধি তার। সে দেখতে চাচ্ছে মুসলমানগণ সজাগ নাকি ঘুমিয়ে আছে।

কথা পরিস্কার আমাদের। নিজেদের মধ্যে বহু ভুল বোঝাবুঝি আছে। অনেক মতানৈক্য। কিন্তু অশোক সাহেবদের জেনে রাখতে হবে, আমরা কেউ কিন্তু ঘুমিয়ে নেই। সজাগ। যতই নিজেদের মধ্যে মতবিরোধ থাকুক, রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম আছে এবং থাকবে, এব্যাপারে আমাদের কোন দ্বিমত নেই। এটা সংবিধান থেকে মুছে যাবেনা।

আমাদের যতই ইখতেলাফ থাকুক, কিন্তু ইসলাম রক্ষার্থে সকল মুসলমান এক প্লাট- ফরমে। আমরা সকল ভেদাভেদ ভুলে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে ইসলাম রক্ষা করব ইনশাআল্লাহ।

ওনারা ভেবেছেন, বর্তমানে হুজুরদের ঘরে আগুন লেগে আছে। এক হুজুর আরেক হুজুরের পিছনে। কওমী শিক্ষাবোর্ডে আগুন,হাটহাজারীতে আগুন, দেশের বিভিন্ন জায়গায় ওলামাদের মধ্যে তুমুল মতানৈক্য চলছে। আলেমগণ ছিন্ন- ভিন্ন হয়ে রয়েছেন।এ সুযোগে অশোক বাবুরা আগুনে আলু পোড়া খেতে চাচ্ছেন!

অসম্ভব! কখনো বরদাশত করব না। আমাদের ইখতেলাফে কাউকে ফায়দা লুটতে দেওয়া হবে না। আমরা ঐক্যবদ্ধ ভাবে সেটা মোকাবেলা করব।

ওনাদের সাহস কত বড়। একটা শান্তিপুর্ণ দেশে, হঠাৎ তিনি অশান্তির আগুন জ্বালাতে চাচ্ছেন। বর্তমান সরকার যেভাবে দক্ষতার সাথে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন,সেখানে অশোক সাহেবদের এধরনের কার্যকলাপ সাম্প্রদায়িকতার দিকে ধাবিত করে। এটা উস্কানিমুলক।
বাংলাদেশ একটি সম্প্রীতির দেশ।সকল ধর্মের সহাবস্হান। এখানে আমরা সকল ধর্মের লোক এক সঙ্গে বসবাস করি। কোনদিন কারো সাথে কোন বিষয়ে বিরোধ সৃষ্টি হয় না।

একটা নজীর বিহীন এই বাংলাদেশ। আজানের ধ্বনিতে ঘুম ভাঙে মানুষের।টেকনাফ থেকে তেঁতুলিয়া সকল ধর্মের মানুষ এক সাথে। এদেশে বহু জায়গায় মসজিদ এবং মন্দির পাশাপাশি। সবাই যার যার ধর্ম পালন করছে। আরো আশ্চার্য হব , পুঁজোর সময় মুসলমানেরা হিন্দুর মুর্তি পাহারা দেয়। মসজিদের ইমামের বাসা পুজোর মন্ডপের সাথে। এভাবে যুগ যুগ ধরে চলে আসছে। কিন্তু কোনদিন কোন প্রকার সমস্যা হয়নি।

হঠাৎ করে অশোক বাবুর লিগ্যাল নোটিশ এদেশের মানুষের মাঝে সম্প্রীতি নষ্ট করা ছাড়া আর কিছু নয়। মিষ্টার বাবু সাহেবদের বলছি, ও সব চিন্তা বন্ধ করুন। আসুন! আমরা সম্প্রীতির এই দেশে এক সাথে মিলে মিশে বসবাস করি।
লেখক : শিক্ষক

নিউজটি শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved 2018 shilonbangla.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com