সোমবার, ২১ অক্টোবর ২০১৯, ১২:১১ পূর্বাহ্ন

আসামে ধর্মের ভিত্তিতে নাগরিকত্ব দেয়ার চেষ্টা মেনে নেয়া হবে না: আমসু

আসামে ধর্মের ভিত্তিতে নাগরিকত্ব দেয়ার চেষ্টা মেনে নেয়া হবে না: আমসু

শীলনবাংলা ডটকম : ধর্মনিরপেক্ষ রাষ্ট্রে ধর্মের ভিত্তিতে নাগরিকত্ব দেয়ার চেষ্টা হলে কোনোভাবেই তা মেনে নেয়া হবে না বলে ‘অল আসাম মাইনরিটি স্টুডেন্টস ইউনিয়ন’ বা ‘আমসু’র পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে। জাতীয় নাগরিকপঞ্জি’র (এনআরসি) চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশিত হওয়ার পরে সম্প্রতি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ অসম সফরে এসে নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল (ক্যাব) পাসের আশ্বাস দেয়ায় ‘আমসু’র পক্ষ থেকে ওই প্রতিক্রিয়া জানানো হলো।

বুধবার ‘আমসু’ উপদেষ্টা আজিজুর রহমান দেয়া সাক্ষাৎকারে বলেছেন, ‘অসমে অনেক দল ও সংগঠন নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলের বিরোধিতা করেছে। আমরাও নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলের বিরোধিতা করব এজন্য যে, ধর্মের ভিত্তিতে যদি কাউকে নাগরিকত্ব দেয়ার চেষ্টা হয় আমরা তা কোনোমতেই মেনে নিতে পারি না। ভারত ‘সেক্যুলার’ দেশ হওয়ায় সেক্যুলারিজমকে অক্ষুণ্ণ রাখতে হবে। আমরা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও কেন্দ্রীয় সরকারের উদ্দেশ্যে আহ্বান জানাচ্ছি, ওনারা যেন এরকম সংবিধানবিরোধী বিল যাতে সংসদে উত্থাপন না করেন। এজন্য অসম ও উত্তরপূর্ব ভারতে যাতে বিরূপ প্রতিক্রিয়া না হয় তা লক্ষ্য রাখবেন বলে আমরা আশাবাদী।’

কেন্দ্রীয় বিজেপি সরকার বাংলাদেশ, পাকিস্তান ও আফগানিস্তান থেকে আসা সংখ্যলঘুদের (হিন্দু, শিখ, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান, জৈন ও পার্সি) ভারতে আশ্রয় দিতে ১৯৫৫ সালের নাগরিকত্ব আইন পরিবর্তন করতে চাচ্ছে। এ সংক্রান্ত বিলে প্রস্তাব করা হয়, ওই তিন দেশ থেকে ভারতে আসা ‘অমুসলিমরা’ ১২ বছরের পরিবর্তে ৬ বছরের মধ্যেই নাগরিকত্ব পাবেন। কিন্তু এভাবে ধর্মীয়ভিত্তিতে নাগরিকত্ব প্রদানের চেষ্টা নিয়ে তীব্র বিতর্ক সৃষ্টি হয়েছে। এরফলে স্থানীয় আদি বাসিন্দাদের রাজনৈতিক, সামাজিক, অর্থনৈতিক স্বার্থ ক্ষুণ্ণ হওয়াসহ বিভিন্ন সঙ্কট সৃষ্টি হবে বলে নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলের বিরোধীরা আশঙ্কা করছেন।

ভারতের উত্তর–পূর্বাঞ্চলের বিভিন্ন রাজ্যকে নিয়ে গঠিত বিজেপি নেতৃত্বাধীন নর্থ ইস্ট ডেমোক্রেটিক অ্যালায়েন্সের (নেডা) সাম্প্রতিক বৈঠকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ বলেছেন, ‘নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল (ক্যাব) উত্তর-পূর্বাঞ্চলের স্থানীয় মানুষের সাংস্কৃতিক ও জাতিগত অস্তিত্বের রক্ষাকবচ হিসেবে থাকা বর্তমান আইন ও একইসঙ্গে ৩৭১ ধারাকে ক্ষুণ্ণ করবে না।

কিন্তু গত (সোমবার) অসমে ‘নেডা’র সম্মেলনে নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল আইনে পরিণত হলে এই অঞ্চলের স্থানীয় মানুষের জীবনে চরম হুমকি হয়ে দাঁড়াতে পারে বলে মেঘালয়, মিজোরাম ও নাগাল্যান্ডের মুখ্যমন্ত্রীরা আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন।

‘নেডা’র সম্মেলনে মিজোরামের মুখ্যমন্ত্রী জোরামথাঙ্গা ‘ক্যাব’-এর আওতা থেকে উত্তর-পূর্বাঞ্চলকে বাদ দিতে স্বরাষ্টমন্ত্রীকে অনুরোধ জানিয়ে বলেন, কোনও রাজনৈতিক দল ওই বিল সমর্থন করলে সেটা আত্মহত্যার তুল্য হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved 2018 shilonbangla.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com