সোমবার, ১৮ জানুয়ারী ২০২১, ০৫:২৭ পূর্বাহ্ন

অনন্য মুফতী ফয়জুল করীম

অনন্য মুফতী ফয়জুল করীম

অনন্য মুফতী ফয়জুল করীম

আমিনুল ইসলাম কাসেমী : যে যাই বলুক, মুফতী ফয়জুল করীম আমার প্রিয়। যাকে দেখলে বিপ্লবী চেতনা জাগ্রত হয়। যার প্রতিটি কথা যেন স্রোতাদের হৃদয়ে আঘাত করে। ইসলাহী বয়ান বলেন আর রাজপথের বক্তৃতা। বে- মেছাল। এদেশের লক্ষ – কোটি জনতার প্রাণের স্পন্দন।

ফয়জুল করীম সাহেবের রাজপথের বক্তৃতা যেন অগ্নিস্ফুলিঙ্গ। হৃদয়ে ঝড় তোলে প্রবল বেগে। ময়দানে খই ফুটতে থাকে। মুহুর্মুহু স্লোগান। প্রতিটি কথায় যেন আগুন ঝরতে থাকে।

ঠিক ইসলাহী মাহফিলগুলোতে যেন কান্নার রোল পড়ে যায়।খোদাপ্রেমের বহিঃপ্রকাশ দেখা যায়। ভক্তদের এমন কান্না যা দেখে হতবাক হবে সবাই। আসলে অতুলনীয় ব্যক্তিত্ব। তিনি আমাদের গর্ব। বাংলাদেশের কোটি – কোটি মানুষের হৃদয়ছোঁয়া ভালবাসা তাঁর প্রতি।

এই মহান ব্যক্তির জন্য দুআ এবং নেক হায়াত কামনা করি।

বাবারে! চরমোনাই আসার দরকার নেই! চরমোনাই পীর সাহেবদের এই কথাগুলো দ্বীল কেড়ে নেয়। কথাটি মরহুম পীর সৈয়দ ফজলুল করীম রহ,কে বলতে শুনেছি। বর্তমানের পীর সাহেবদ্বয়ও বলে থাকেন।

” বাবারে! তোমাদের চরমোনাই আসার দরকার নেই। যেখানে গেলে তুমি ইসলাহ হতে পারবে,সংশোধন হতে পারবে, গোনাহ থেকে বেঁচে থাকতে পারবে, সেখানে চলে যাও। তবুও তুমি আর গোনাহ করিও না। ফিরে আস গোনাহের রাস্তা থেকে।

আহ,, চমৎকার কথা। এত সুন্দর কথা কমই শোনা যায়। কারো চরমোনাই যাওয়ার প্রয়োজন নেই। আসলে মানুষের প্রয়োজন হল, হেদায়েত হওয়া, সঠিক রাস্তায় চলা। সুতরাং কাউকে চরমোনাই যেতে হবে না। যেখানে গেলে নিজের সংশোধন করানো যাবে সেখানে যাও।

চরমোনাই এর মরহুম পীর সাহেব একজন মুখলিস পীর ছিলেন বোঝা যায়। বর্তমানের পীর ও সেই পথের পথিক। মুখলিস পীর ছাড়া এমন কথা বলা সম্ভব নয়।

আজকাল পীরেরা মুরীদদের বিভিন্ন কায়দা কৌশলে নিজের খানকার দিকে আহবান করে। কোন পীর বলে না যে , তোমরা আমার কাছে আসিও না। বরং সবাই বলে , আমার কাছেই আস, আমি হক। কিন্তু চরমোনাই এর পীর সাহেবান বলে থাকেন, চরমোনাই আসতে হবেনা, বরং যেখানে হক্কানী পীর – মাশায়েখ বা আলেম- উলামা পাবে, তাদের সংস্পর্শে থাকার চেষ্টা কর। হৃদয় ছোঁয়া কথা পীর সাহেবদের। দ্বীলটা ভরে যাবে মানুষের। এরকম উদার হওয়ার দরকার সকলের।

সারাদেশ ভেজাল পীরে ভরে গেছে। ভন্ড পীরেরা মানুষকে গোমরাহ বানাচ্ছে। ভেল্কিবাজী দিয়ে নিজেদের কাছে নিয়ে সরল-প্রাণ মানুষকে গোমরাহ বানিয়ে দিচ্ছে। এজন্য সতর্ক হওয়ার দরকার।

কোথায় পাব ভাল পীর? আচ্ছা আপনি ভাল ডাক্তার কোথায় পাবেন? আপনি বা আপনার পরিবারের কেউ অসুস্হ হলে তখন ভাল ডাক্তার কোথায় আছে, সেটা কিভাবে তালাশ করেন?

আমরা ভাল ডাক্তার কোথায়? এটা জানার জন্য মানুষের কাছে খোঁজ নেই। জিজ্ঞেস করি। কোথায় আছে।

মানুষ সাধারণত যে ডাক্তারের কাছে গেলে অধিকাংশ রোগী ভাল হয়ে যায়, সে ডাক্তারের সন্ধান আমাদের দিয়ে থাকে। সুতরাং সেই রকম ডাক্তারের কাছে আমরা যাই। ঠিক আমার -আপনার রুহানী চিকিৎসার জন্য একজন ভাল ডাক্তারের খোঁজ নিতে হবে। তার জন্য ভাল মানুষের কাছে খোঁজ নেওয়া যেতে পারে। দ্বীনদার কোন ব্যক্তির কাছে সন্ধান চাওয়া যেতে পারে।

কিন্তু দুঃখ হল, আজকাল আমরা কারো ধার- ধারিনা। কারো সাথে কোন পরামর্শ করি না। একজন ভেল্কি দেখালে সেখানে দৌড় শুরু করে দেই। সে ভাল না মন্দ, সেটারও বাছ- বিছার নেই আমাদের।

মোটকথা, ভাল মানুষের সংস্পর্শ জরুরি। খারাপ মানুষ থেকে দুরে থাকতে হবে। কখনো কোন খারাপ লোকের কাছে যাওয়া যাবেনা। খারাপ লোকের কাছে গেলে নিজের যতটুকু ঈমান আমল আছে তাও ধ্বংস হয়ে যাবে।

মুফতী শফি সাহেব রহ, বলতেন, মানুষ বলে আজকাল ভাল লোক পাওয়া যায় না। তিনি বলতেন , তোমার এলাকায় কি কোন ইমাম – মুয়াজ্জিন নেই? অন্তত ইমাম- মুয়াজ্জিনের সোহবতে হলেও থাকার চেষ্টা কর।তবুও খারাপ লোকের সংস্পর্শে যেও না।
“আল্লাহু আকবার” অনেক মুল্যবান কথা। তাই আসুন! আর এদিক- সেদিক নয়। ভাল মানুষ খুঁজে তাঁর সোহবত গ্রহণ করি। আল্লাহ তায়ালা তাওফিক দিন। আমিন।

লেখক : কলামিস্ট

নিউজটি শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved 2018 shilonbangla.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com